ঢাকা, ২৬ অক্টোবর মঙ্গলবার, ২০২১ || ১০ কার্তিক ১৪২৮
 নিউজ আপডেট:

প্লে-অফের আশা জিইয়ে রাখল হায়দরাবাদ

ক্যাটাগরি : খেলা প্রকাশিত: ৮৮৪১ঘণ্টা পূর্বে


প্লে-অফের আশা জিইয়ে রাখল হায়দরাবাদ

অবশেষে জয়ে ফিরল সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। বৃহস্পতিবার দুবাইয়ে রাজস্থান রয়্যালসকে ৮ উইকেটে হারিয়ে প্লে-অফের আশা জিইয়ে রাখল ডেভিড ওয়ার্নারের দল। এই জয়ের ফলে ১০ ম্যাচে ৮ পয়েন্ট নিয়ে পাঁচ নম্বরে উঠে এল সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। আর এই ম্যাচ হেরে ১১ ম্যাচে ৮ পয়েন্ট নিয়ে সাত নম্বরে নেমে গেল রাজস্থান রয়্যালস।

১৫৪ রান তাড়া করতে নেমেই শুরুতেই দুই ওপেনারকে হারায় সানরাইজার্স। প্রথম ওভারেই হায়দরাবাদ ক্যাপ্টেন ডেভিড ওয়ার্নাকে ডাগ-আউটে ফেরান জোফরা আর্চার। মাত্র ৪ রান করে ডাগ-আউটে ফেরেন ওয়ার্নার। নিজের দ্বিতীয় তথা ইনিসের তৃতীয় ওভারে অপর ওপেনার জনি বেয়ারস্টোকে ফিরিয়ে রাজস্থানকে ম্যাচ ফেরান আর্চার। মাত্র ১০ রান করে আর্চারের বলে বোল্ড হন বেয়ারস্টো।

এরপর অবশ্য রয়্যালসদের নিয়ে ছেলেখেলা করে হায়দরাবাদকে জেতালেন মনীশ পান্ডে ও বিজয় শংকর। তৃতীয় উইকেটে ১৪০ রানের পার্টনারশিপে হাসতে হাসতে ম্যাচ জিতে নেয় সানরাইজার্স। ১৮.১ ওভারে মাত্র ২ উইকেট হারিয়ে ম্যাচ জিতে নেয় হায়দরাবাদ। ব্যাট হাতে দুরন্ত মনীশ ও শংকর। দু'জনের হাফ-সেঞ্চুরি করেন।

তবে বেশি আক্রমণাত্মক ছিলেন মনীশ। ৪৭ বলে ৮৩ রানের দুর্দান্ত ইনিংস খেলেন তিনি। ইনিংসে ৮টি ওভার বাউন্ডারি ও ৪টি বাউন্ডারি মারেন মনীশ। আর ৫১ বলে হাফ-ডজন বাউন্ডারি মেরে ৫২ রানে অপরাজিত থাকেন বিজয়। মাত্র ৯১ বলে দু'জনে ১৪০ রানের পার্টনারশিপ গড়ে দলকে জেতান মনীশ ও বিজয়।

এর আগে প্রথমে ব্যাটিং করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ১৫৪ রান তোলে রাজস্থান রয়্যালস। রবিন উথাপ্পা ও বেন স্টোকস ওপেনিং জুটিতে ৩৩ রান যোগ করে। ১৩ বলে ১৯ রান করে রান-আউট হন উথাপ্পা। এরপর স্টোকস ও সঞ্জু স্যামসন দলের ইনিংসকে এগিয়ে নিয়ে যান। স্যামসন ২৬ বলে তিনটি বাউন্ডারি ও একটি ওভার বাউন্ডারির সাহায্যে ৩৬ রান করে হোল্ডারের শিকার হন। যিনি এদিন কেন উইলিয়ামসনের পরিবর্তে দল সুযোগ পান। আর সেটা দারুণভাবে কাজে লাগান। ৪ ওভারে ৩৩ রান খরচ করে তুলে নেন তিনটি উইকেট।

শেয়ার করুনঃ
আপনার মতামত লিখুন:
Search
গাইবান্ধায় কিশোরী লিমা হত্যা মামলার আসামীদের গ্রেপ্তার দাবিতে মানববন্ধন  গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জের ধর্মপুর পিএন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেনীর মেধাবি ছাত্রী লিমা আক্তার হত্যাকারীদের দ্রুত গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবিতে  হত্যাকান্ডের পর থেকেই দফায় দফায় বিক্ষোভ মিছিল,সড়ক অবরোধ সহ মানববন্ধন  করে আসছে বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী।    বুধবার (২০ অক্টোবর) দুপুরে  গাইবান্ধা শহরের ডিবি রোডে ঘন্টাব্যাপী এক মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এতে বক্তব্য দেন, নারী মুক্তি আন্দোলনের সদস্য সচিব নিলুফার ইয়াসমিন শিল্পী, শোভাগঞ্জ ডিগ্রী কলেজের প্রভাষক আবদুল্লাহ আল মামুন,নিহত লিমার বাবা আব্দুল লতিফ, বড় ভাই লিমন মিয়া, ছোট ভাই লিটু মিয়া, কামরুল ইসলাম, আহসান হাবীব,রিমা রিক্তার,পলি বর্মন,আব্দুল আহাদ, শাহাদাৎ হোসেন সিপার, মোস্তাফিজুর রহমান লাভলু, হিমুন দেব বিশ্ব সহ অন্যরা।   গত ২৩ সেপ্টেম্বর লিমা স্থানীয় একটি কোচিং সেন্টারে যাওয়ার পথে স্থানীয় বখাটে শাকিল অপহরন করে নিয়ে যায়। পরে ১০ অক্টোবর চট্রগ্রাম ইপিজেড এলাকার শাকিলের মামা সোলায়মান আলীর ভাড়া বাসা থেকে লিমার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এই ঘটনায় শাকিল ও তার মামা সোলায়মান আলীকে গ্রেপ্তার করা হলেও আসামী হাফিজুর রহমান, হৃদয় মিয়া, শাকিলের বাবা শহিদুল ইসলাম সহ অন্যান্যদের এখনও গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। দ্রুত আসামীদের গ্রেপ্তার করে বিচার দাবি জানান বক্তারা।

গাইবান্ধায় কিশোরী লিমা হত্যা মামলার আসামীদের গ্রেপ্তার দাবিতে মানববন্ধন গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জের ধর্মপুর পিএন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেনীর মেধাবি ছাত্রী লিমা আক্তার হত্যাকারীদের দ্রুত গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবিতে হত্যাকান্ডের পর থেকেই দফায় দফায় বিক্ষোভ মিছিল,সড়ক অবরোধ সহ মানববন্ধন করে আসছে বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী। বুধবার (২০ অক্টোবর) দুপুরে গাইবান্ধা শহরের ডিবি রোডে ঘন্টাব্যাপী এক মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এতে বক্তব্য দেন, নারী মুক্তি আন্দোলনের সদস্য সচিব নিলুফার ইয়াসমিন শিল্পী, শোভাগঞ্জ ডিগ্রী কলেজের প্রভাষক আবদুল্লাহ আল মামুন,নিহত লিমার বাবা আব্দুল লতিফ, বড় ভাই লিমন মিয়া, ছোট ভাই লিটু মিয়া, কামরুল ইসলাম, আহসান হাবীব,রিমা রিক্তার,পলি বর্মন,আব্দুল আহাদ, শাহাদাৎ হোসেন সিপার, মোস্তাফিজুর রহমান লাভলু, হিমুন দেব বিশ্ব সহ অন্যরা। গত ২৩ সেপ্টেম্বর লিমা স্থানীয় একটি কোচিং সেন্টারে যাওয়ার পথে স্থানীয় বখাটে শাকিল অপহরন করে নিয়ে যায়। পরে ১০ অক্টোবর চট্রগ্রাম ইপিজেড এলাকার শাকিলের মামা সোলায়মান আলীর ভাড়া বাসা থেকে লিমার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এই ঘটনায় শাকিল ও তার মামা সোলায়মান আলীকে গ্রেপ্তার করা হলেও আসামী হাফিজুর রহমান, হৃদয় মিয়া, শাকিলের বাবা শহিদুল ইসলাম সহ অন্যান্যদের এখনও গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। দ্রুত আসামীদের গ্রেপ্তার করে বিচার দাবি জানান বক্তারা।


সারাদেশের সংবাদ