ঢাকা, ২৬ অক্টোবর মঙ্গলবার, ২০২১ || ১০ কার্তিক ১৪২৮
 নিউজ আপডেট:

হোয়াটমোরের সেরা টেস্ট একাদশে সাকিব, নেই কোন ভারতীয় খেলোয়ার

ক্যাটাগরি : খেলা প্রকাশিত: ৭৮৮০ঘণ্টা পূর্বে


হোয়াটমোরের সেরা টেস্ট একাদশে সাকিব, নেই কোন ভারতীয় খেলোয়ার

ডেভ হোয়াটমোর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বড় নাম। চ্যালেঞ্জ নিতে ভালোবাসেন অস্ট্রেলিয়ান এই কোচ। শ্রীলঙ্কাকে সাদামাটা দল থেকে তুলে এনে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন করিয়েছেন। বাংলাদেশকে... দাঁড়ান, সবার আগে মনে পড়বে সাকিব আল হাসান, তামিম ইকবালদের নাম। হোয়াটমোর বাংলাদেশের কোচ থাকতেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে আবির্ভাব ঘটেছিল সাকিব-তামিমদের। খেলোয়াড়ি জীবন ও কোচিং ক্যারিয়ারে যেসব দল এবং যাঁদের সঙ্গে কাজ করেছেন, সেখান থেকে সেরা টেস্ট একাদশ গড়েছেন হোয়াটমোর। এই দলে হোয়াটমোর রেখেছেন নিজের সাবেক শিষ্য সাকিব আল হাসানকেও।

২০০৩ বিশ্বকাপের দুঃস্বপ্ন থেকে বেরিয়ে আসতে হোয়াটমোরকে কোচ করে এনেছিল বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। ২০০৭ বিশ্বকাপ শেষে বাংলাদেশ দলের দায়িত্ব ছাড়েন গত ফেব্রুয়ারিতে সিঙ্গাপুর দলের কোচের দায়িত্ব নেওয়া ৬৬ বছর বয়সী সাবেক এ ক্রিকেটার। বাংলাদেশে চার বছরের দায়িত্বে জাতীয় দলকে শক্ত ভিত পাইয়ে দিয়েছিলেন হোয়াটমোর। রূপান্তর ঘটিয়েছিলেন বাংলাদেশ ক্রিকেটের। একসময় যে দলটাকে নিয়ে অনেকে হাসাহাসি করত, সেই দলেরই মানসিকতায় পরিবর্তন এনে আক্রমণাত্মক ক্রিকেট খেলার ধারা এনে দিয়েছিলেন তিনি। সাকিব-তামিম-মুশফিকদের আগমন সে ধারা বজায় রেখেই।
২০০৬ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষিক্ত হন সাকিব। হোয়াটমোরের অধীনে সে ম্যাচে মুশফিকুর রহিমেরও ওয়ানডে অভিষেক ঘটেছিল। হোয়াটমোর বাংলাদেশের কোচ হিসেবে তাঁর চার বছর মেয়াদে জাতীয় দলে কী পরিবর্তন এনেছিলেন, তার উৎকৃষ্ট প্রমাণ মেলে ২০০৭ বিশ্বকাপে। হোয়াটমোরের জমানায় সেরা সাফল্য সেই বিশ্বকাপে গ্রুপ পর্বে ভারতকে হারিয়ে সুপার সিক্স নিশ্চিত করার পর দক্ষিণ আফ্রিকাকেও হারিয়েছিল বাংলাদেশ। বিশ্বকাপে প্রথমবারের মতো প্রথম রাউন্ডের গণ্ডি পেরোনোটা ছিল বাংলাদেশের ক্রিকেটের এগিয়ে চলার প্রমাণ। সাকিব সেই বিশ্বকাপে ভালো পারফরম্যান্স করে চিনিয়েছিলেন নিজেকে। পরে তো ক্রিকেটের তিন সংস্করণেই বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার হন তিনি।

সে (সাকিব) ত্রিমাত্রিক খেলোয়াড় এবং বিশ্বের সেরা অলরাউন্ডার।
ডেভ হোয়াটমোর, বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সাবেক কোচ
হোয়াটমোর তাঁর সেরা টেস্ট একাদশে বিশেষজ্ঞ অলরাউন্ডারের জায়গায় রেখেছেন সাকিবকে। ব্যাটিং অর্ডারে ৭ নম্বর। ক্রিকইনফোর ‘ক্রিকেট মান্থলি’ সাময়িকীতে নিজের এই সেরা টেস্ট একাদশ জানান হোয়াটমোর। সাকিবকে নিয়ে সেখানে তিনি বলেছেন, ‘আমি জানতাম সে দীর্ঘদিন বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করতে যাচ্ছে। সে যেভাবে ক্রিকেটটা খেলতে চেয়েছে, সেটিই এর কারণ। ওয়ানডেতে ও ছিল ভীষণ প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ। ব্যাটিং-বোলিংয়ে দক্ষতা আছে, সময় গড়িয়ে চলার সঙ্গে সে স্পিনার-ব্যাটসম্যান হিসেবে শীর্ষ অলরাউন্ডারও হয়েছে। আরও বেশি আত্মবিশ্বাসী হয়েছে। সে ত্রিমাত্রিক খেলোয়াড় এবং বিশ্বের সেরা অলরাউন্ডার।’

হোয়াটমোরের সেরা টেস্ট একাদশ
সনাৎ জয়াসুরিয়া
আজহার আলী
কুমার সাঙ্গাকারা
অরবিন্দ ডি সিলভা
মাহেলা জয়াবর্ধনে
অ্যালান বোর্ডার (অধিনায়ক)
সাকিব আল হাসান
চামিন্দা ভাস
রডনি হগ
মুত্তিয়া মুরালিধরন
উমর গুল

শেয়ার করুনঃ
আপনার মতামত লিখুন:
Search
গাইবান্ধায় কিশোরী লিমা হত্যা মামলার আসামীদের গ্রেপ্তার দাবিতে মানববন্ধন  গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জের ধর্মপুর পিএন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেনীর মেধাবি ছাত্রী লিমা আক্তার হত্যাকারীদের দ্রুত গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবিতে  হত্যাকান্ডের পর থেকেই দফায় দফায় বিক্ষোভ মিছিল,সড়ক অবরোধ সহ মানববন্ধন  করে আসছে বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী।    বুধবার (২০ অক্টোবর) দুপুরে  গাইবান্ধা শহরের ডিবি রোডে ঘন্টাব্যাপী এক মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এতে বক্তব্য দেন, নারী মুক্তি আন্দোলনের সদস্য সচিব নিলুফার ইয়াসমিন শিল্পী, শোভাগঞ্জ ডিগ্রী কলেজের প্রভাষক আবদুল্লাহ আল মামুন,নিহত লিমার বাবা আব্দুল লতিফ, বড় ভাই লিমন মিয়া, ছোট ভাই লিটু মিয়া, কামরুল ইসলাম, আহসান হাবীব,রিমা রিক্তার,পলি বর্মন,আব্দুল আহাদ, শাহাদাৎ হোসেন সিপার, মোস্তাফিজুর রহমান লাভলু, হিমুন দেব বিশ্ব সহ অন্যরা।   গত ২৩ সেপ্টেম্বর লিমা স্থানীয় একটি কোচিং সেন্টারে যাওয়ার পথে স্থানীয় বখাটে শাকিল অপহরন করে নিয়ে যায়। পরে ১০ অক্টোবর চট্রগ্রাম ইপিজেড এলাকার শাকিলের মামা সোলায়মান আলীর ভাড়া বাসা থেকে লিমার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এই ঘটনায় শাকিল ও তার মামা সোলায়মান আলীকে গ্রেপ্তার করা হলেও আসামী হাফিজুর রহমান, হৃদয় মিয়া, শাকিলের বাবা শহিদুল ইসলাম সহ অন্যান্যদের এখনও গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। দ্রুত আসামীদের গ্রেপ্তার করে বিচার দাবি জানান বক্তারা।

গাইবান্ধায় কিশোরী লিমা হত্যা মামলার আসামীদের গ্রেপ্তার দাবিতে মানববন্ধন গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জের ধর্মপুর পিএন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেনীর মেধাবি ছাত্রী লিমা আক্তার হত্যাকারীদের দ্রুত গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবিতে হত্যাকান্ডের পর থেকেই দফায় দফায় বিক্ষোভ মিছিল,সড়ক অবরোধ সহ মানববন্ধন করে আসছে বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী। বুধবার (২০ অক্টোবর) দুপুরে গাইবান্ধা শহরের ডিবি রোডে ঘন্টাব্যাপী এক মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এতে বক্তব্য দেন, নারী মুক্তি আন্দোলনের সদস্য সচিব নিলুফার ইয়াসমিন শিল্পী, শোভাগঞ্জ ডিগ্রী কলেজের প্রভাষক আবদুল্লাহ আল মামুন,নিহত লিমার বাবা আব্দুল লতিফ, বড় ভাই লিমন মিয়া, ছোট ভাই লিটু মিয়া, কামরুল ইসলাম, আহসান হাবীব,রিমা রিক্তার,পলি বর্মন,আব্দুল আহাদ, শাহাদাৎ হোসেন সিপার, মোস্তাফিজুর রহমান লাভলু, হিমুন দেব বিশ্ব সহ অন্যরা। গত ২৩ সেপ্টেম্বর লিমা স্থানীয় একটি কোচিং সেন্টারে যাওয়ার পথে স্থানীয় বখাটে শাকিল অপহরন করে নিয়ে যায়। পরে ১০ অক্টোবর চট্রগ্রাম ইপিজেড এলাকার শাকিলের মামা সোলায়মান আলীর ভাড়া বাসা থেকে লিমার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এই ঘটনায় শাকিল ও তার মামা সোলায়মান আলীকে গ্রেপ্তার করা হলেও আসামী হাফিজুর রহমান, হৃদয় মিয়া, শাকিলের বাবা শহিদুল ইসলাম সহ অন্যান্যদের এখনও গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। দ্রুত আসামীদের গ্রেপ্তার করে বিচার দাবি জানান বক্তারা।


সারাদেশের সংবাদ