ঢাকা, ২৬ অক্টোবর মঙ্গলবার, ২০২১ || ১০ কার্তিক ১৪২৮
 নিউজ আপডেট:

ইসলামী গবেষণায় একুশে পদক পাচ্ছেন হাফেজ নিজামী শাহ

ক্যাটাগরি : ধর্ম-কর্ম প্রকাশিত: ১৪৯৭১ঘণ্টা পূর্বে


ইসলামী গবেষণায় একুশে পদক পাচ্ছেন হাফেজ নিজামী শাহ

মোহাম্মদ হাসানঃ ইসলামী গবেষণায় জন্য একুশে পদক পাচ্ছেন মীরসররাই উপজেলার সূর্য সন্তান হাফেজ ক্বারী আল্লামা সৈয়দ মোহাম্মদ ছাইফুর রহমান নিজামী শাহ্। এবার একুশে পদকের জন্য ২০ জনকে মনোনীত করা হয়েছে। বিভিন্ন ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের স্বীকৃতিসরূপ তাদের এ পদকে ভূষিত করা হচ্ছে। বুধবার সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানায়।

আল্লামা সৈয়দ মোহাম্মদ ছাইফুর রহমান নিজামী শাহ্ পবিত্র কোরআনুল কারীমের তাফসির "তাফসিরে মাশাহেদুল ঈমান" প্রণয়ন করেন, এবং সহীহ বোখারী শরীফের ব্যাখ্যা গ্রন্থ "তাফহিমুল বোখারী শরীফ" প্রণয়ন করেন। এছাড়া ইসালামে প্রকৃত ধারা আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাতের উপর গবেষণায় বিভিন্ন বিষয়ে প্রায় ১০০টির উপর বই রচনা করেন। ইসলামী গবেষণায় ও বিভিন্ন গ্রন্থের অবদান রাখেন আল্লামা সৈয়দ মোহাম্মদ ছাইফুর রহমান নিজামী শাহ।

ইসলামী গবেষণায় একুশে পদকে মনোনিত হওয়ার পর গতকাল সকাল সাড়ে ১০টায় আল্লামা সৈয়দ মোহাম্মদ ছাইফুর রহমান নিজামী শাহ বলেন, আমার খুবই ভালো লাগছে, ‘আমি এ পুরস্কারের জন্য আল্লাহ তায়ালার ও রাসুল (সাঃ) কাছে শুকরিয়া আদায় করছি। এ বিশেষ গৌরবময় পুরস্কার আল্লাহ রাসুলের রহমত ছাড়া কিছুতেই সম্ভব ছিল না। আর এই জন্য কতৃপক্ষকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করছি।

আল্লামা সৈয়দ মোহাম্মদ ছাইফুর রহমান নিজামী শাহ মীরসরাই উপজেলার ৬নং ইছাখালী ইউনিয়নের উত্তর ইছাখালী গ্রামের এক সম্ভান্তÍ অলি পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা পীরে কামেল আলহাজ্ব হাফেজ ক্বারী সৈয়দ শাহ গোলাম রহমান এছমতী (রহঃ) প্রকাশ বড় হাফেজ কেবলা প্রখ্যাত কামেল অলি ছিলেন।

জানা যায়, তিনি প্রাথমিক শিক্ষা নেন তার বাবার নিকট থেকে, তিনি মাত্র ৭বছর বয়সেই কোরআনে হাফেজ ছিলেন এবং তিনি তার বাবার নিকট থেকে এলমে ক্বেরাত, ছরফ, নাহু, বালাগাত, আরবী, ফার্সি উর্দ্দু এমনকি তফসীর, ফিকাহ, হাদীস, হাকিমী বিদ্যা ও রিমিয়া বিদ্যাও পড়েন এবং সাথে সাথে তিনি প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষাও অর্জন করেন।

ভাষা আন্দোলনের শহীদদের স্মরণে ১৯৭৬ সাল থেকে প্রতিবছর বিভিন্ন ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে এ পুরস্কার দিয়ে আসছে সরকার।

আগামী ২০ ফেব্রæয়ারি সকাল সাড়ে ১০টায় রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে আনুষ্ঠানিকভাবে ২০২০ সালের একুশে পদকে মনোনীতদের হাতে পুরস্কার তুলে দেবেন প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা।


শেয়ার করুনঃ
আপনার মতামত লিখুন:
Search
গাইবান্ধায় কিশোরী লিমা হত্যা মামলার আসামীদের গ্রেপ্তার দাবিতে মানববন্ধন  গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জের ধর্মপুর পিএন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেনীর মেধাবি ছাত্রী লিমা আক্তার হত্যাকারীদের দ্রুত গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবিতে  হত্যাকান্ডের পর থেকেই দফায় দফায় বিক্ষোভ মিছিল,সড়ক অবরোধ সহ মানববন্ধন  করে আসছে বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী।    বুধবার (২০ অক্টোবর) দুপুরে  গাইবান্ধা শহরের ডিবি রোডে ঘন্টাব্যাপী এক মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এতে বক্তব্য দেন, নারী মুক্তি আন্দোলনের সদস্য সচিব নিলুফার ইয়াসমিন শিল্পী, শোভাগঞ্জ ডিগ্রী কলেজের প্রভাষক আবদুল্লাহ আল মামুন,নিহত লিমার বাবা আব্দুল লতিফ, বড় ভাই লিমন মিয়া, ছোট ভাই লিটু মিয়া, কামরুল ইসলাম, আহসান হাবীব,রিমা রিক্তার,পলি বর্মন,আব্দুল আহাদ, শাহাদাৎ হোসেন সিপার, মোস্তাফিজুর রহমান লাভলু, হিমুন দেব বিশ্ব সহ অন্যরা।   গত ২৩ সেপ্টেম্বর লিমা স্থানীয় একটি কোচিং সেন্টারে যাওয়ার পথে স্থানীয় বখাটে শাকিল অপহরন করে নিয়ে যায়। পরে ১০ অক্টোবর চট্রগ্রাম ইপিজেড এলাকার শাকিলের মামা সোলায়মান আলীর ভাড়া বাসা থেকে লিমার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এই ঘটনায় শাকিল ও তার মামা সোলায়মান আলীকে গ্রেপ্তার করা হলেও আসামী হাফিজুর রহমান, হৃদয় মিয়া, শাকিলের বাবা শহিদুল ইসলাম সহ অন্যান্যদের এখনও গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। দ্রুত আসামীদের গ্রেপ্তার করে বিচার দাবি জানান বক্তারা।

গাইবান্ধায় কিশোরী লিমা হত্যা মামলার আসামীদের গ্রেপ্তার দাবিতে মানববন্ধন গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জের ধর্মপুর পিএন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেনীর মেধাবি ছাত্রী লিমা আক্তার হত্যাকারীদের দ্রুত গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবিতে হত্যাকান্ডের পর থেকেই দফায় দফায় বিক্ষোভ মিছিল,সড়ক অবরোধ সহ মানববন্ধন করে আসছে বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী। বুধবার (২০ অক্টোবর) দুপুরে গাইবান্ধা শহরের ডিবি রোডে ঘন্টাব্যাপী এক মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এতে বক্তব্য দেন, নারী মুক্তি আন্দোলনের সদস্য সচিব নিলুফার ইয়াসমিন শিল্পী, শোভাগঞ্জ ডিগ্রী কলেজের প্রভাষক আবদুল্লাহ আল মামুন,নিহত লিমার বাবা আব্দুল লতিফ, বড় ভাই লিমন মিয়া, ছোট ভাই লিটু মিয়া, কামরুল ইসলাম, আহসান হাবীব,রিমা রিক্তার,পলি বর্মন,আব্দুল আহাদ, শাহাদাৎ হোসেন সিপার, মোস্তাফিজুর রহমান লাভলু, হিমুন দেব বিশ্ব সহ অন্যরা। গত ২৩ সেপ্টেম্বর লিমা স্থানীয় একটি কোচিং সেন্টারে যাওয়ার পথে স্থানীয় বখাটে শাকিল অপহরন করে নিয়ে যায়। পরে ১০ অক্টোবর চট্রগ্রাম ইপিজেড এলাকার শাকিলের মামা সোলায়মান আলীর ভাড়া বাসা থেকে লিমার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এই ঘটনায় শাকিল ও তার মামা সোলায়মান আলীকে গ্রেপ্তার করা হলেও আসামী হাফিজুর রহমান, হৃদয় মিয়া, শাকিলের বাবা শহিদুল ইসলাম সহ অন্যান্যদের এখনও গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। দ্রুত আসামীদের গ্রেপ্তার করে বিচার দাবি জানান বক্তারা।


সারাদেশের সংবাদ