ঢাকা, ২৭ জুলাই মঙ্গলবার, ২০২১ || ১১ শ্রাবণ ১৪২৮

মানুষে মানুষে ভ্রাতৃত্ব, সাম্য প্রতিষ্ঠায় মহানবী (সঃ) এর মদিনা সনদ-মোহাম্মদ হাসান

ক্যাটাগরি : ধর্ম-কর্ম প্রকাশিত: ১২৩৫৮ঘণ্টা পূর্বে


মানুষে মানুষে ভ্রাতৃত্ব, সাম্য প্রতিষ্ঠায় মহানবী (সঃ) এর মদিনা সনদ-মোহাম্মদ হাসান

আল্লাহ তাআলা যুগ যুগ ধরে দুনিয়ায় বহু নবী-রাসুল পাঠিয়েছেন। হজরত আদম (আ.) সর্বপ্রথম নবী ও রাসুল। আর সর্বশেষ নবী হচ্ছেন হজরত মুহাম্মদ মুস্তাফা (সা.)। এ প্রসঙ্গে আল্লাহ পাক বলেন, "আমি তো আপনাকে সমগ্র মানুষের জন্য সুসংবাদদাতা ও সতর্ককারী হিসেবে পাঠিয়েছি"। (সুরা : আল আরাফ, আয়াত : ১৫৮)


মহানবী (সা.)-এর আগমনের মাধ্যমে ইসলাম পূর্ণতা লাভ করেছে। ফলে দুনিয়ায় আর কোনো নবী আসার প্রয়োজনীয়তার অবসান ঘটেছে।


এই পূর্ণতা সম্পর্কে পবিত্র কোরআনে বলেছেন, "আজ আমি তোমাদের জন্য তোমাদের দ্বিন পূর্ণাঙ্গ করলাম এবং তোমাদের প্রতি আমার অনুগ্রহ সম্পূর্ণ করলাম এবং ইসলামকে তোমাদের দ্বিন হিসেবে মনোনীত করলাম।"(সুরা আল-মায়েদা, আয়াত : ৩)



সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ ও সর্বশেষ নবী মুহাম্মদ (সা.) মানুষে মানুষে ভ্রাতৃত্ব, সাম্য ও যাবতীয় মানবিক অধিকার প্রতিষ্ঠা করে গেছেন। তিনি মদিনা সনদের মাধ্যমে শুধু মুসলমানদের অধিকারই প্রতিষ্ঠা করেননি, বরং সব গোত্র ও ধর্মের মানুষের নাগরিক অধিকার নিশ্চিত করেছেন। মদিনা সনদ আজও মুসলিম-অমুসলিম নির্বিশেষে সবার কাছে একটি শ্রেষ্ঠ দলিল হিসেবে বিবেচিত হয়। মহানবী (সা.) ইসলামী রাষ্ট্রে অমুসলিমদের যে অধিকার সংরক্ষণ করেছেন তার ছিটেফোঁটাও কোনো ধর্ম ও মতবাদ আজ পর্যন্ত দেখাতে পারেনি। ইতিহাসের পাতা উল্টালে দেখা যাবে, মহানবী (সা.) একমাত্র ব্যক্তিত্ব যিনি সামাজিক, ধর্মীয় ও রাষ্ট্রীয় আইনের মাধ্যমে সংখ্যালঘু অমুসলিমদের অধিকারের নিশ্চয়তা দিয়েছেন।


মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)-এর নবুয়তপ্রাপ্তির পর মানবজাতির মধ্যে শান্তি, শৃঙ্খলা ও মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় তাঁর সর্বশ্রেষ্ঠ কর্ম হচ্ছে মদিনা সনদ বা একটি সংবিধান প্রণয়ন। এ সংবিধান পৃথিবীর সর্বপ্রথম লিখিত একটি পূর্ণাঙ্গ রাষ্ট্রীয় সংবিধান।  


মহানবী (স.) মদিনায় অবস্থানকারী মুহাজির ও আনসারদের মধ্যে সম্প্রীতি স্থাপন ও মদিনায় বিবদমান গোত্রগুলোর মধ্যকার বিরোধ মীমাংসা করে একটি ঐক্যবদ্ধ জাতি গঠনের প্রয়াস পান। এ উদ্দেশ্যে তিনি মদিনায় বসবাসরত সব জাতির জন্য ৬২২ খ্রিস্টাব্দে একটি সনদ প্রণয়ন করেন, যা বিশ্ব ইতিহাসে "মদিনা সনদ" (Charter of Medina) নামে পরিচিত। মদিনা সনদে মোট ৪৭টি ধারা ছিল। এর উলে­খযোগ্য ধারাগুলো নিন্মরূপ।


★    মদিনা সনদে স্বাক্ষরকারী মুসলমান, ইহুদি, খ্রিস্টান, পৌত্তলিকসহ সব সম্প্রদায় একটি সাধারণ জাতি গঠন করবে এবং সব সম্প্রদায় সমান নাগরিক অধিকার ভোগ করবে।


★      হজরত মুহাম্মদ (সা.) নব গঠিত মদিনা প্রজাতন্ত্রের সভাপতি হবেন এবং পদাধিকার বলে তিনি মদিনার সর্বোচ্চ বিচারালয়ের (Court of Appeal) সর্বময় কর্তা হবে।


★     সব নাগরিক পূর্ণ ধর্মীয় স্বাধীনতা ভোগ করবে। কেউ কারো ধর্মে হস্তক্ষেপ করতে পারবে না।


★         কেউ কুরাইশদের সঙ্গে বা অন্য কোনো বহিঃশত্রুর সঙ্গে কোনো প্রকার গোপন সন্ধি করতে পারবে না কিংবা মদিনাবাসীর বিরুদ্ধে কোনো ষড়যন্ত্রে কুরাইশদের সাহায্য করতে পারবে না। কোনো সম্প্রদায় মদিনা প্রজাতন্ত্রের স্বার্থের পরিপন্থী কোনো কাজে লিপ্ত হতে পারবে না।


★      সনদে স্বাক্ষরকারী সম্প্রদায়ের কোনো ব্যক্তি অপরাধ করলে তা ব্যক্তিগত অপরাধ হিসেবে বিবেচিত হবে। এ জন্য সম্প্রদায়কে দায়ী করা যাবে না।


★       মদিনা নগরী আক্রান্ত হলে দেশের স্বাধীনতা রক্ষার জন্য সবাই যুদ্ধ করবে এবং প্রতিটি সম্প্রদায় নিজ নিজ ব্যয়ভার বহন করবে।


★    মদিনা নগরীকে পবিত্র বলে ঘোষণা করা হলো এবং এখানে রক্তপাত, হত্যা, বলাৎকার ও অপরাধমূলক কাজ নিষিদ্ধ করা হলো।


★      দুর্বল ও অসহায়কে সর্বাÍকভাবে সাহায্য ও রক্ষা করতে হবে।


  ★   অপরাধীকে উপযুক্ত শাস্তি ভোগ করতে হবে এবং সব ধরনের পাপী ও অপরাধীকে ঘৃণার চোখে দেখতে হবে।


★     হজরত মুহাম্মদ (সা.)-এর পূর্ব অনুমতি ছাড়া মদিনাবাসী কারো বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করতে পারবে না।


★        নিজেদের মধ্যে বিরোধ দেখা দিলে হজরত মুহাম্মদ (সা.) আল্লাহর বিধান অনুযায়ী তা মীমাংসা করে দেবেন।


★        এই সনদের শর্ত ভঙ্গকারীর ওপর আল্লাহর অভিসম্পাত বর্ষিত হবে।


★      ইহুদিদের মিত্ররাও সমান নিরাপত্তা ও স্বাধীনতা ভোগ করবে। মদিনা সনদই পৃথিবীর সর্বপ্রথম একটি পূর্ণাঙ্গ লিখিত সংবিধান। এর আগে সুমেরীয় রাজা ডুঙ্গি ‘ডুঙ্গি কোড’ ((Dungi Code, বেবিলনীয় রাজা হাম্মুরাবি ‘হাম্মুরাবি আইন সংহিতা’ ((Code of Hammurabi) ১৭৫৪ খ্রিস্টপূর্ব ও রোমানরা ‘দ্বাদশ সারণি’ (Twelve Tables) ৪৫০ খ্রিস্টপূর্ব লিখিত সংবিধান প্রণয়ন করেন। যুগের চাহিদা অনুযায়ী এসব আইন বা সংবিধান অভিনব হলেও আধুনিক রাষ্ট্রীয় সংবিধানের ন্যায় তা রাষ্ট্র পরিচালনা ও নাগরিকদের সব ধরনের প্রয়োজন মেটাতে সক্ষম ছিল না। এরপর দীর্ঘকাল বিরতির পর মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) মদিনা সনদ নামে যে আইনটি প্রণয়ন করেন, তা ছিল সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ সংবিধান। এ আইনে জাতি-ধর্ম-বর্ণ-নির্বিশেষে সবার সমান অধিকার নিশ্চিত করা হয়েছিল। মদিনায় বসবাসরত সব জাতি ও গোত্র এ আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল ছিল। এ আইনে দাস-দাসী, নারী, দুর্বল ও অসহায় থেকে শুরু করে উচ্চ শ্রেণি পর্যন্ত সবার অধিকারের কথা উলে­খ ছিল। মদিনা সনদের অপর একটি বিশেষত্ব হচ্ছে, এতে পার্থিব ও ধর্মীয় বিধানের সমন্বয় হয়েছিল। মহানবী (সা.) মদিনা সনদের মাধ্যমে প্রকারান্তরে আল্লাহর বিধানকে কার্যকর করেছিলেন। আল্লাহর বিধান ছিল সমগ্র মানবজাতির জন্য কল্যাণকর। তাই মদিনা সনদ সবার কাছে গ্রহণযোগ্য হয়েছিল। এর মাধ্যমে আল্লাহ ও তাঁর রাসুলের শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণিত হয়েছিল।


লেখকঃ মোহাম্মদ হাসান, সাংবাদিক ও কলামিস্ট।  

শেয়ার করুনঃ
আপনার মতামত লিখুন: