ঢাকা, ২৬ অক্টোবর মঙ্গলবার, ২০২১ || ১০ কার্তিক ১৪২৮
 নিউজ আপডেট:

মোংলায় এসডিজি বাস্তবায়নে বাপা’র নদ-নদী জলাশয় রক্ষা বিষয়ক প্রশিক্ষণ

ক্যাটাগরি : ফিচার প্রকাশিত: ৯১৮৬ঘণ্টা পূর্বে


মোংলায় এসডিজি বাস্তবায়নে বাপা’র নদ-নদী জলাশয় রক্ষা বিষয়ক প্রশিক্ষণ

শেখ রাফসান বাগেরহাট প্রতিনিধিঃ উপকূল অঞ্চলে স্থায়ীত্বশীল উন্নয়নে নদ-নদী ও জলাশয় সংরক্ষণে সচেতনতা সৃষ্টি এবং সরকারকে সহযোগিতার লক্ষ্যে বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) মোংলা শাখা, পশুর রিভার ওয়াটারকিপার এবং ওয়াটারকিপার্স বাংলাদেশ এর যৌথ আয়োজনে ৮ অক্টোবর  বৃহস্পতিবার সকালে মোংলার টাইগার হোটেল মিলনায়তনে “স্থানীয় পর্যায়ে প্রশিক্ষন ও প্রতিনিধি নির্বাচন কর্মশালা’র” উদ্বোধনী অনুষ্ঠান হয়।


বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় প্রশিক্ষণ কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন ( বাপা ) মোংলা শাখার আহবায়ক পশুর রিভার ওয়াটারকিপার মোঃ নূর আলম শেখ। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন উপজেলা নির্বাহি অফিসার কমলেশ মজুমদার। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন মোংলা সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ গোলাম সরোয়ার, মোংলা প্রেসক্লাবের সভাপতি এইচ এম দুলাল, সুশাসনের জন্য নাগরিক-সুজন এর ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অধ্যাপক শেখ নজরুল ইসলাম এবং ওয়াটারকিপার্স বাংলাদেশ’র ব্যবস্থাপক ( গবেষণা ও বাস্তবায়ন ) আরাফাত জুবায়ের।

 

এছাড়া প্রশিক্ষণ কর্মশালায় উপস্থিত ছিলেন প্রভাষক মাহবুবুর রহমান, মনোজ কান্তি বিশ্বাস, জেলে সমিতি সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রশিদ হাওলাদার, পশুর রিভার ওয়াটারকিপার ভলান্টিয়ার কমলা সরকার, ইস্রাফিল বয়াতি, মাহারুফ বিল্লাহ, রাকেস সানা, রমেশ শীল প্রমূখ। প্রশিক্ষণ কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন সরকার টেকসই উন্নয়নের জন্য দেশের সকল নদনদী সংরক্ষণের ব্যাপারে ব্যাপক উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।

প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে পরিচালিত জাতীয় পরিবেশ কমিটি নদ-নদী রক্ষায় শক্তিশালী টাস্কফোর্স গঠন এবং জাতীয় নদী রক্ষা কমিশন প্রতিষ্ঠা করে। বাংলাদেশের একটি দীর্ঘমেয়াদি উন্নয়নের সংকল্প নিয়ে ইতিমধ্যে বর্তমান সরকার বাংলাদেশ বদ্বীপ পরিকল্পনা-২১০০ প্রণয়ন করেছে। বক্তারা সুন্দরবন, পশুর নদীসহ উপকূল অঞ্চলের নদ-নদী ও জলাশয় সংরক্ষণে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।

শেয়ার করুনঃ
আপনার মতামত লিখুন:
Search
গাইবান্ধায় কিশোরী লিমা হত্যা মামলার আসামীদের গ্রেপ্তার দাবিতে মানববন্ধন  গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জের ধর্মপুর পিএন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেনীর মেধাবি ছাত্রী লিমা আক্তার হত্যাকারীদের দ্রুত গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবিতে  হত্যাকান্ডের পর থেকেই দফায় দফায় বিক্ষোভ মিছিল,সড়ক অবরোধ সহ মানববন্ধন  করে আসছে বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী।    বুধবার (২০ অক্টোবর) দুপুরে  গাইবান্ধা শহরের ডিবি রোডে ঘন্টাব্যাপী এক মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এতে বক্তব্য দেন, নারী মুক্তি আন্দোলনের সদস্য সচিব নিলুফার ইয়াসমিন শিল্পী, শোভাগঞ্জ ডিগ্রী কলেজের প্রভাষক আবদুল্লাহ আল মামুন,নিহত লিমার বাবা আব্দুল লতিফ, বড় ভাই লিমন মিয়া, ছোট ভাই লিটু মিয়া, কামরুল ইসলাম, আহসান হাবীব,রিমা রিক্তার,পলি বর্মন,আব্দুল আহাদ, শাহাদাৎ হোসেন সিপার, মোস্তাফিজুর রহমান লাভলু, হিমুন দেব বিশ্ব সহ অন্যরা।   গত ২৩ সেপ্টেম্বর লিমা স্থানীয় একটি কোচিং সেন্টারে যাওয়ার পথে স্থানীয় বখাটে শাকিল অপহরন করে নিয়ে যায়। পরে ১০ অক্টোবর চট্রগ্রাম ইপিজেড এলাকার শাকিলের মামা সোলায়মান আলীর ভাড়া বাসা থেকে লিমার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এই ঘটনায় শাকিল ও তার মামা সোলায়মান আলীকে গ্রেপ্তার করা হলেও আসামী হাফিজুর রহমান, হৃদয় মিয়া, শাকিলের বাবা শহিদুল ইসলাম সহ অন্যান্যদের এখনও গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। দ্রুত আসামীদের গ্রেপ্তার করে বিচার দাবি জানান বক্তারা।

গাইবান্ধায় কিশোরী লিমা হত্যা মামলার আসামীদের গ্রেপ্তার দাবিতে মানববন্ধন গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জের ধর্মপুর পিএন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেনীর মেধাবি ছাত্রী লিমা আক্তার হত্যাকারীদের দ্রুত গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবিতে হত্যাকান্ডের পর থেকেই দফায় দফায় বিক্ষোভ মিছিল,সড়ক অবরোধ সহ মানববন্ধন করে আসছে বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী। বুধবার (২০ অক্টোবর) দুপুরে গাইবান্ধা শহরের ডিবি রোডে ঘন্টাব্যাপী এক মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এতে বক্তব্য দেন, নারী মুক্তি আন্দোলনের সদস্য সচিব নিলুফার ইয়াসমিন শিল্পী, শোভাগঞ্জ ডিগ্রী কলেজের প্রভাষক আবদুল্লাহ আল মামুন,নিহত লিমার বাবা আব্দুল লতিফ, বড় ভাই লিমন মিয়া, ছোট ভাই লিটু মিয়া, কামরুল ইসলাম, আহসান হাবীব,রিমা রিক্তার,পলি বর্মন,আব্দুল আহাদ, শাহাদাৎ হোসেন সিপার, মোস্তাফিজুর রহমান লাভলু, হিমুন দেব বিশ্ব সহ অন্যরা। গত ২৩ সেপ্টেম্বর লিমা স্থানীয় একটি কোচিং সেন্টারে যাওয়ার পথে স্থানীয় বখাটে শাকিল অপহরন করে নিয়ে যায়। পরে ১০ অক্টোবর চট্রগ্রাম ইপিজেড এলাকার শাকিলের মামা সোলায়মান আলীর ভাড়া বাসা থেকে লিমার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এই ঘটনায় শাকিল ও তার মামা সোলায়মান আলীকে গ্রেপ্তার করা হলেও আসামী হাফিজুর রহমান, হৃদয় মিয়া, শাকিলের বাবা শহিদুল ইসলাম সহ অন্যান্যদের এখনও গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। দ্রুত আসামীদের গ্রেপ্তার করে বিচার দাবি জানান বক্তারা।


সারাদেশের সংবাদ