ঢাকা, ৩০ জুলাই শুক্রবার, ২০২১ || ১৫ শ্রাবণ ১৪২৮
 নিউজ আপডেট:

চাঁদপুরে ১১ নং ইব্রাহিমপুর ইউনিয়নে মেঘনার ভাঙ্গনে ঈদগাঁবাজার হুমকির মুখে ও রাস্তার বেহাল দশা

ক্যাটাগরি : বাংলাদেশ প্রকাশিত: ৯১৮২ঘণ্টা পূর্বে


চাঁদপুরে ১১ নং ইব্রাহিমপুর ইউনিয়নে মেঘনার ভাঙ্গনে ঈদগাঁবাজার হুমকির মুখে ও রাস্তার বেহাল দশা

আলমগীর বাবু, চাঁদপুর প্রতিনিধি: চাঁদপুর সদর উপজেলা ১১ নং ইব্রাহিমপুর ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ডের রাস্তাটি বতর্মানে মানুষ চলাচলের  অনুপোযোগী হয়ে পড়েছে। এলাকাবাসী স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের কাছে  কয়েকবার দাবী করার পরেও, এই রাস্তাটির স্থায়ী উন্নয়ন মূলক কোন কাজ হয়নি। স্থানীয় ইউনিয়নের চেয়ারম্যান অস্থায়ীভাবে একবার কিছু কংক্রিট ও বালু দিয়ে রাস্তাটি মেরামত করিয়েছিলেন কিছুদিন পর যেই রাস্তা সেই হয়ে গিয়েছে কিন্তু স্থায়ীভাবে কেউই রাস্তাটির কোন মেরামত করার উদ্যোগ নেয়নি। ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব মোঃ কাশেম খান বলেন, আমার ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ড  এই রাস্তাটির আবস্থানটি  ইদ্রিস সরদারের  বাড়ি হইতে চরফতেজংপুর বাজার পর্যন্ত প্রায় দেড় কিলোমিটার রাস্তাটি বেহাল দশা। এ রাস্তা দিয়ে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ এবং বহু প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা যাতায়াত করে। আমার ইউনিয়নের এ রাস্তাটি চাঁদপুর  শরীয়তপুরের সংযোগস্থল একটি হাইওয়ে  সরু রাস্তার নিকটবর্তী।প্রতিবছর বৃষ্টির মৌসুমে রাস্তাটি নাজুক অবস্থা হয়ে যায় বলে জানান। এ রাস্তাটি শরীয়তপুর হাইওয়ে রাস্তার নিকটবর্তী হইতে হাইমচর ৪ নং নীলকমল ইউনিয়নের ঈশানবালার সাথে মিলিত। এই রাস্তাটি বাজারের সাথে মিলিত হইয়াছে।এই রাস্তা দিয়ে রাত দিন শত শত লোক যাতায়াত করে। রাস্তাটি সংস্কার করলে ছোট ছোট বাচ্চাদের স্কুলে যাতায়াতের সুবিধা হবে।বর্ষার সময় এ রাস্তাটি চলাচলের অযোগ্য এই কাঁদা-পানি ভেঙ্গে যাতায়াত করতে হয় মানুষকে। এছাড়া সন্ধ্যার পর এ রাস্তায় কোনো আলোর ব্যবস্থা না থাকায় অন্ধকারে অসহনীয় দুর্ভোগে পড়েন যাতায়াতকারীরা। সদর উপজেলা ১১নং ইব্রাহীমপুর (ইউপি) চেয়ারম্যান ও  ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব মোঃ কাশেম খান আরো বলেন, চরফতেজংপুর  বাজারটি অনেক বড়।এ বাজারে দোকানপাট ব্যাবসায়ী প্রায় ১৫০/২০০ জনের মতো। এবাজারে একটি নৌ পুলিশ ফাঁড়ি, একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে, কওমি মাদ্রাসা, কয়েকটি জামে মসজিদ এবং পাঞ্জেখানা মসজিদ,কমিউনিটি ক্লিনিক, বাজারে রয়েছে আরেকটি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার, ডিজিটাল পদ্ধতিতে চরফতেজংপুর ছালেহীয়া এবতেদায়ী মাদ্রাসা বহুমুখী ঘূর্ণিঝড় আশ্রয় কেন্দ্র সহ অসংখ্য  প্রতিষ্ঠান রয়েছে। তিঁনি আরো জানান,  ইউনিয়নের প্রতিটি ওয়ার্ডে রাস্তার মাঝে কালভার্ট না থাকার কারনে কৃষি জমিগুলোতে সেচের পানি নিতে পারেনা। কালভার্ট না থাকায় কৃষিজমির ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির সম্মুখে পড়ে এবং রাস্তা দিয়ে আসা যাওয়া সাধারন মানুষের দূর্ভোগ  পোহাতে হয়। আমার ইউনিয়নটি একটি নদী ভাংতি এলাকা। মেঘনার ভাঙ্গনে ঈদগাঁ বাজারের অর্ধেক অংশ নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যায়। বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও চাঁদপুর সদর ৩ হাইমচর আসনের সংসদ মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী আলহাজ্ব ডা.দীপু মনি এমপির সু দৃষ্টি কামনা করছে ১১নং ইব্রাহিমপুর ইউনিয়ন বাসী। দ্রুত নদী ভাঙ্গনের বাঁধ নির্মাণ কাজ করলে  রক্ষা পাবে ইব্রাহীমপুর ইউনিয়ন বাসীরা।

৮নং ওয়ার্ড মেম্বার মোঃ মিজান বেপারী, আবুল কালাম, ডাঃ শাহ আলম দেওয়ান, ইয়াছিন, রুহুল আমিন খান সহ বাজার ব্যবসায়ীরা জানান, বর্ষার সময় কাদাপানির জন্য ও রাতের বেলা এই রাস্তা দিয়ে যাতায়াত করা যায় না। সন্ধ্যার পর অনেকে মোবাইল ফোনের আলোতে কোনো রকমে যাওয়া আসা করেন।এলাকা বাসীর বহুদিনের লালিত স্বপ্ন রাস্তাটির স্থায়ী  সংস্কার। তাই এলাকাবাসীর এখন একটাই দাবি স্থানীয় ইউনিয়ন জনপ্রতিনিধি  ও উপজেলা চেয়ারম্যানের কাছে  এই রাস্তাটি যেন  স্থায়ীভাবে  সংস্কারের ব্যবস্থা করা হয়।

শেয়ার করুনঃ
আপনার মতামত লিখুন: