ঢাকা, ২৬ অক্টোবর মঙ্গলবার, ২০২১ || ১০ কার্তিক ১৪২৮
 নিউজ আপডেট:

সিরাজগঞ্জে বাগবাটিতে শিক্ষক পরিবারকে হত্যার হুমকি দিয়ে দোকান ও জোরপূর্বক জমি দখলের চেষ্টা

ক্যাটাগরি : বাংলাদেশ প্রকাশিত: ৬৮০ঘণ্টা পূর্বে


সিরাজগঞ্জে বাগবাটিতে শিক্ষক পরিবারকে হত্যার হুমকি দিয়ে  দোকান ও জোরপূর্বক জমি দখলের চেষ্টা

 

মাসুদ রানা সিরাজগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি ঃ

সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার বাগবাটি ইউনিয়নের চক ফুলকোচা গ্রামে জমিসংক্রান্ত বিরোধের জেরে ঘোরাচরা উচ্চ বিদ্যালয়ের অবসর প্রাপ্ত বিএসসি শিক্ষক মো. রহিচ উদ্দিন এর পরিবারকে হত্যার হুমকি দিচ্ছে বলে অভিযোগ ওঠেছে।

এ ঘটনায় সিরাজগঞ্জ সদর থানায় সাধারণ ডায়েরী হয়েছে বলে ওই ভুক্তভোগী পরিবার সূত্রে জানা গেছে।

এদিকে ভুক্তভোগী পরিবার আইনের আশ্র‍য় নেয়ায় আরও বেপরোয়া হয়ে আজ সোমবার সকাল ৬ টায় তাদের পৈতৃক সম্পত্তিতে বিভিন্ন প্রজাতির গাছ জোড়পূর্বক ভাবে কর্তন করেছে এবং ঘর তোলারও অভিযোগ রয়েছে প্রতিপক্ষ আব্দুর রাজ্জাকের বিরুদ্ধে। এতে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে বলে অভিযোগ করেছে ভুক্তভোগী শিক্ষক পরিবার।
স্থানীয়রা জানায়, প্রায় ৮ মাস পূর্বে ওই গ্রামের মৃত হারান আলীর ছেলে আব্দুর রাজ্জাকের অনুরোধে পাকা রাস্তার পাশে একটি মুদি দোকান তোলার অনুমতি দেয় শিক্ষক পরিবার। পরে দোকান নির্মাণের পর থেকেই প্রত্যেক দিন ও সন্ধ্যারাতে টেলিভিশন চালিয়ে উচ্চস্বরে গান বাজিয়ে নিকটস্থ মহিলা মাদ্রাসার পড়াশোনায় বিগ্ন সৃষ্টি করে আব্দুর রাজ্জাক।
এতে স্থানীয়রা বারবার নিষেধ করলেও সেটি তোয়াক্কা করেননি তিনি। এ অবস্থায় দোকান সরিয়ে নিতে বলাতেই শিক্ষক পরিবারের উপর বিভিন্ন ভাবে হত্যার হুমকি শুরু করেছেন বলে জানা যায়।
শিক্ষকের ছেলে মো. রাশিদুল ইসলাম অভিযোগ করে বলেন, আমার বাবার পৈতৃক সম্পত্তিতে দোকান তুলে আব্দুর রাজ্জাক পূর্ব পরিকল্পিতভাবে আমাদের বিভিন্ন ভাবে ক্ষতি করছে। দোকান সরে নিতে বলায় আমাদের সবাইকে হত্যার হুমকি দিয়েছে। আমার চাচা আব্দুল হামিদ সেখ এ ব্যাপার থানায় অভিযোগ দিয়েছে।
অভিযুক্ত আব্দুর রাজ্জাককে মোবাইলে কল করা হলে সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে ফোনটি কেটে দেন।
এদিকে সিরাজগঞ্জ সদর থানার এএসআই তাপস কুমার মন্ডল বলেন, শনিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) ৯৯৯ এ কল পাওয়ার পর ঘটনাস্থলে গিয়েছিলাম। উভয় পক্ষকে থানায় এসে মীমাংসার কথা বলা হয়েছিলো। কিন্তু বিবাদীপক্ষ থানায় আসেনি।
এ প্রসঙ্গে বাগবাটি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, বিষয়টি আমি অবগত হয়েছি। স্থানীয়দের সাথে কথা বলে খুব দ্রুত নিষ্পত্তি করা হবে।

শেয়ার করুনঃ
আপনার মতামত লিখুন:
আরও সংবাদ পড়ুন
Search
গাইবান্ধায় কিশোরী লিমা হত্যা মামলার আসামীদের গ্রেপ্তার দাবিতে মানববন্ধন  গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জের ধর্মপুর পিএন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেনীর মেধাবি ছাত্রী লিমা আক্তার হত্যাকারীদের দ্রুত গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবিতে  হত্যাকান্ডের পর থেকেই দফায় দফায় বিক্ষোভ মিছিল,সড়ক অবরোধ সহ মানববন্ধন  করে আসছে বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী।    বুধবার (২০ অক্টোবর) দুপুরে  গাইবান্ধা শহরের ডিবি রোডে ঘন্টাব্যাপী এক মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এতে বক্তব্য দেন, নারী মুক্তি আন্দোলনের সদস্য সচিব নিলুফার ইয়াসমিন শিল্পী, শোভাগঞ্জ ডিগ্রী কলেজের প্রভাষক আবদুল্লাহ আল মামুন,নিহত লিমার বাবা আব্দুল লতিফ, বড় ভাই লিমন মিয়া, ছোট ভাই লিটু মিয়া, কামরুল ইসলাম, আহসান হাবীব,রিমা রিক্তার,পলি বর্মন,আব্দুল আহাদ, শাহাদাৎ হোসেন সিপার, মোস্তাফিজুর রহমান লাভলু, হিমুন দেব বিশ্ব সহ অন্যরা।   গত ২৩ সেপ্টেম্বর লিমা স্থানীয় একটি কোচিং সেন্টারে যাওয়ার পথে স্থানীয় বখাটে শাকিল অপহরন করে নিয়ে যায়। পরে ১০ অক্টোবর চট্রগ্রাম ইপিজেড এলাকার শাকিলের মামা সোলায়মান আলীর ভাড়া বাসা থেকে লিমার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এই ঘটনায় শাকিল ও তার মামা সোলায়মান আলীকে গ্রেপ্তার করা হলেও আসামী হাফিজুর রহমান, হৃদয় মিয়া, শাকিলের বাবা শহিদুল ইসলাম সহ অন্যান্যদের এখনও গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। দ্রুত আসামীদের গ্রেপ্তার করে বিচার দাবি জানান বক্তারা।

গাইবান্ধায় কিশোরী লিমা হত্যা মামলার আসামীদের গ্রেপ্তার দাবিতে মানববন্ধন গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জের ধর্মপুর পিএন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেনীর মেধাবি ছাত্রী লিমা আক্তার হত্যাকারীদের দ্রুত গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবিতে হত্যাকান্ডের পর থেকেই দফায় দফায় বিক্ষোভ মিছিল,সড়ক অবরোধ সহ মানববন্ধন করে আসছে বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী। বুধবার (২০ অক্টোবর) দুপুরে গাইবান্ধা শহরের ডিবি রোডে ঘন্টাব্যাপী এক মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এতে বক্তব্য দেন, নারী মুক্তি আন্দোলনের সদস্য সচিব নিলুফার ইয়াসমিন শিল্পী, শোভাগঞ্জ ডিগ্রী কলেজের প্রভাষক আবদুল্লাহ আল মামুন,নিহত লিমার বাবা আব্দুল লতিফ, বড় ভাই লিমন মিয়া, ছোট ভাই লিটু মিয়া, কামরুল ইসলাম, আহসান হাবীব,রিমা রিক্তার,পলি বর্মন,আব্দুল আহাদ, শাহাদাৎ হোসেন সিপার, মোস্তাফিজুর রহমান লাভলু, হিমুন দেব বিশ্ব সহ অন্যরা। গত ২৩ সেপ্টেম্বর লিমা স্থানীয় একটি কোচিং সেন্টারে যাওয়ার পথে স্থানীয় বখাটে শাকিল অপহরন করে নিয়ে যায়। পরে ১০ অক্টোবর চট্রগ্রাম ইপিজেড এলাকার শাকিলের মামা সোলায়মান আলীর ভাড়া বাসা থেকে লিমার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এই ঘটনায় শাকিল ও তার মামা সোলায়মান আলীকে গ্রেপ্তার করা হলেও আসামী হাফিজুর রহমান, হৃদয় মিয়া, শাকিলের বাবা শহিদুল ইসলাম সহ অন্যান্যদের এখনও গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। দ্রুত আসামীদের গ্রেপ্তার করে বিচার দাবি জানান বক্তারা।


সারাদেশের সংবাদ